তাইওয়ানের আকাশসীমায় চীনের ৩০ যুদ্ধবিমান

তাইওয়ানের আকাশসীমায় চীনের ৩০ যুদ্ধবিমান অনুপ্রবেশ করেছে। এ অভিযোগ করেছে তাইওয়ান। এটি চলতি বছরে চীনের দ্বিতীয় বৃহৎ যুদ্ধবিমানের বহরের অনুপ্রবেশ। তাইপে বলছে, এই বহরে থাকা ৩০টি যুদ্ধবিমানের ২০টি ছিল জঙ্গিবিমান। খবর এএফপির

গতকাল সোমবার দিন শেষে তাইওয়ানের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় জানায়, অনুপ্রবেশকারী যুদ্ধবিমানগুলোকে সতর্ক করতে দেশটি নিজেদের যুদ্ধবিমান উড্ডয়ন করায়। চীনের সর্বশেষ কর্মকাণ্ড নজরদারি করতে ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষাব্যবস্থাও মোতায়েন করে।

চীন সাম্প্রতিক বছরগুলোতে নিজেদের অসন্তোষের বিষয়টি জানাতে তাইওয়ানের আকাশসীমায় যুদ্ধবিমানের বড় বহর পাঠাচ্ছে। এভাবে তাইপের পুরোনো যুদ্ধবিমানবহরকে নিয়মিতই চাপে রাখছে বেইজিং।

স্বশাসিত গণতান্ত্রিক তাইওয়ান চীনের অব্যাহত আগ্রাসনের হুমকির মধ্যেই বসবাস করছে। দ্বীপটিকে নিজেদের ভূখণ্ড মনে করে বেইজিং। তাইওয়ানকে কোনো এক সময় একীভূত করারও অঙ্গীকার করেছে চীন। বেইজিং এ জন্য প্রয়োজনে শক্তি প্রয়োগের কথাও বলে আসছে।

দ্বীপটিকে ঘিরে চীন উত্তেজনা বাড়াচ্ছে বলে গত সপ্তাহে অভিযোগ করেছে যুক্তরাষ্ট্র। বিশেষ করে যুদ্ধবিমানের অনুপ্রবেশের ঘটনাকে উল্লেখ করে পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিঙ্কেন এটাকে ‘ক্রমবর্ধমান উসকানিমূলক ভাষা ও কর্মকাণ্ডের’ উদাহরণ বলে মন্তব্য করেন।

এর আগে জাপান সফরে এক প্রশ্নের জবাবে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন বলেন, চীন আক্রমণ করলে যুক্তরাষ্ট্র সামরিকভাবে তাইওয়ানকে রক্ষা করবে। তাঁর এই ঘোষণা তাইওয়ানের বিষয়ে যুক্তরাষ্ট্রের দীর্ঘদিনের নীতি থেকে সরে আসার ইঙ্গিত। অবশ্য হস্তক্ষেপ করবে নাকি করবে না, সেই ‘কৌশলগত অস্পষ্টতার’ নীতি পরিবর্তন হয়নি বলে এর পর থেকে জোর দিয়ে আসছে হোয়াইট হাউস।

সোমবার তাইওয়ানের আকাশসীমায় চীনের যুদ্ধবিমানের অনুপ্রবেশ ছিল গত ২৩ জানুয়ারির পর সবচেয়ে বড়। ওই দিন ৩৯টি যুদ্ধবিমান তাইওয়ানের আকাশ প্রতিরক্ষা শনাক্ত অঞ্চলে (এডিআইজেড) প্রবেশ করেছিল।

Leave a Comment

Your email address will not be published.