সম্পাদকীয়মতামত
চলমান

বাংলাদেশে গুম, বিচারবহির্ভূত হত্যা বন্ধ হোক

বাংলাদেশে সম্প্রতি সফর করেন জাতিসংঘের মানবাধিকার বিষয়ক হাইকমিশনার মিশেল ব্যাশেলেত। চার দিনের বাংলাদেশ সফরের সময় তিনি প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেছেন। তিনি গুম, বিচারবহির্ভূত হত্যা, মতপ্রকাশের স্বাধীনতা ক্ষুণ্ণ হওয়া, বিরোধীদের ওপর দমন-পীড়নসহ নানা ক্ষেত্রে বাংলাদেশে মানবাধিকার লঙ্ঘনের বিষয়ে গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেন। এ বিষয়ে দেশের ও বিদেশের মানবাধিকার সংগঠনগুলো ধারাবাহিকভাবে উদ্বেগ প্রকাশ করে এলেও সরকার বরাবরই এসব অভিযোগ অস্বীকার করে আসছে। অথচ গুম, বিচারবহির্ভূত হত্যা এবং নির্যাতনের এই অভিযোগগুলো সরকারের অস্বীকারের সুযোগ নেই।

মিশেল ব্যাশেলেত সরকারের কাছে তাঁর গভীর উদ্বেগের কথা বলেছেন এবং মানবাধিকার লঙ্ঘনের গুরুতর অভিযোগগুলো সুরাহার স্বার্থে স্বাধীন, নিরপেক্ষ ও স্বচ্ছ তদন্ত সংস্থা গঠনের প্রস্তাব দিয়েছেন। জাতিসংঘের কোনো সদস্যদেশে মানবাধিকার লঙ্ঘনের অভিযোগ দীর্ঘদিন উপেক্ষিত থাকলে সাধারণত স্বাধীন ও নিরপেক্ষ তদন্তের বিষয়টি নিয়ে কথা বলে থাকে এই সংস্থা।

এটা মেনে নিতেই হবে বেশকিছু আলোচিত হত্যাকাণ্ডের বিচার হয়নি, বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলোকে দমনে মামলা একটি হাতিয়ার হিসেবে বিবেচিত হচ্ছে। একইভাবে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মাধ্যমে দেশের সংবাদমাধ্যম ও মতপ্রকাশের স্বাধীনতাকে ক্ষুণ্ণ করা হয়েছে যা মিশেল ব্যাশেলেতের বিবৃতিতে উঠে এসেছে। মতপ্রকাশের স্বাধীনতাকে উন্মুক্ত করা প্রয়োজন, গণতন্ত্র রক্ষায় এটি অপরিহার্য একটি বিষয়। মানবাধিকার লঙ্ঘন প্রশ্নে বাংলাদেশের সরকার অস্বীকারের সংস্কৃতি থেকে বের হয়ে আসবে এটাই প্রত্যাশা করি। সেইসাথে আশাকরি সকল প্রকার গুম, বিচারবহির্ভূত হত্যা বন্ধ হবে।

Back to top button