আমার যতো কবিতা

নাজমুল আনোয়ার

আমার যতো কবিতা

শীতের আমেজ আসন্নপ্রায় এই শহরে
হেমন্তের এই প্রান্তিক দিনগুলির কথাই বলছিলাম।

সকালের রৌদ্র জানালা,
ঝকঝকে নীলাকাশ, আর মাত্র ক’দিনের!
রোজ-অফ-শ্যারন ফুলগুলি এখনই উবু হয়ে গেছে;
মাতাল গ্রীষ্মের দুরন্ত অভিলাষে যেনো ভাটা পড়েছে।
রূপান্তরের বার্তা নিয়ে আসা এ দিনগুলির কথাই বলছিলাম।

পাতাঝরা কান্নায় রঙ্গীন হওয়া এই গাছগুলি
অনেক আদরের, সত্যিই চোখ জুড়ানো!
ঘাস গুলি বিবর্ণ হলেও, সাদা শিশিরে
ভেজা গন্ধ ছড়ায়; বৃষ্টিনন্দিত নিকানো উঠোনে।
দস্যিপনা-দুরন্ত হিম বাতাসের এ দিনগুলির কথাই বলছিলাম।

অনিন্দ্য সুন্দর ঝরা পাতাদের ত্যাগে মহিমান্বিত-
হেমন্তের এই দিনগুলি পালাবদল মেনে নিতে শিখায়;
স্থির, নিশ্চল আর প্রশান্ত হতে শিখায়।
আপন সত্তার পুনর্মূল্যায়ন, পরিচর্যা শিখায়।
ক্লেশ অতিক্রান্ত হেমন্তের এ দিনগুলির কথাই বলছিলাম।

নর্থভিলে, মিশিগান

জাহিদুর রহমান চৌধুরী
গীতিকবিতা

তুমি বল মন দেখাবো, মন দেখাবো
তোমারে বার বার
আমি বলি সে সাধ্য কি
আছে গো আমার॥প্রিয়
দেখাইলাম দেহের বাহির
যাহা কিছু ছিল নজির
এখন দেখিতে চাও আরো গভীর
এ কেমন বিচার॥ প্রিয়
এ মন রেখেছি তারি লাগি
কত নিশীত রাতি জাগি
যা দেখে নাই পশু ও পাখি
এ যে আমার অহংকার॥ প্রিয়
যারে দেখাবো মায়ার এ মন
সে যে আমার পরম ধন
তারে স্বপ্ন দেখে সারা জীবন
কেঁদেছি বারবার॥ প্রিয়

স্টারলিং হাইটস, মিশিগান

 

জয়নাল আফসার
অণু কাব্য

যেখানে আলো নেই
সেখানেই অন্ধকারের নিবাস।

আগুনই জানে
অন্যকে পুড়াতে
নিজকে কতোটুকু পুড়াতে হয়।

কী এতো মুগ্ধতা (!)
তোমার চোখে,
আমি যেনো খুন হয়ে যাই,
তীর বিঁধে বুকে।
কী এতো মাধকতায়
ডাকো —আমায় তুমি (!)
আমি মাতালের মতো
ভুলে যাই — আকাশ আর ভূমি।

———————————————–

চৈতন্যোদয় নদী
শুকিয়ে যাচেছ,
মালতী লতায় ঘেরা গ্রাম
এখন ধূলিধূসর ।
পিতামহের লাঙ্গল
মাচানে কাটছে গুনপোকা।
শিশুরা খেলে না আর
চোর পুলিশ —কানামছি ,
তারা এখন খেলে
যুদ্ধ যুদ্ধ খেলা ।

 


Posted

in

by