প্রচ্ছদ

রোনালদোর পাশে খেলবেন মেসি!

০৫ জুলাই ২০২০, ২৩:১২

banglashangbad.com

যৌবনের উপবনকে কি সত্যিই বিদায় জানাবেন লিও মেসি? এই মুহূর্তে সেরকমই আশঙ্কার কালো মেঘ ঘনীভূত হচ্ছে বার্সেলোনার আকাশে-বাতাসে। অনেকেই বলছেন, স্পেনের এই শহরে আর থাকতে চাইছেন না আর্জেন্টাইন মহাতারকাটি। প্রাণের প্রিয় ক্লাব সম্পর্কে তার আবেগ না কি এখন তলানিতে। কিন্তু কেন?
বার্সেলোনাই তো তাকে বিশ্ব ফুটবলের অবিসংবাদিত নায়কে পরিণত করেছে। একাধিক সাক্ষাৎকারে তা অবশ্য মুক্তকণ্ঠে স্বীকার করেছেন লিও। কিন্তু এখন পরিস্থিতি বদলেছে। পাল্টেছে পরিবেশও। ক্লাবের শীর্ষকর্তাদের সঙ্গে তার মন কষাকষির দড়ি টানাটানি চলছে গত কয়েক মাস ধরেই। বেশ কয়েকটি ঘটনা মন থেকে মেনে নিতে পারেননি মেসি। নবীকরণ হয়নি চুক্তিও। স্প্যানিশ সংবাদমাধ্যমগুলো এখন তার প্রস্থানের পথ সম্পর্কে গাদা গাদা নিউজপ্রিন্ট খরচ করছে।

শুক্রবার ব্রাজিল এবং বার্সেলোনার সাবেক খেলোয়াড় রিভাল্ডো বলেছেন, ‘ড্রেসিং-রুমের পরিবেশ ঠিক নেই বলেই মেসি বার্সা ছাড়ার ভাবনাচিন্তা করছে। গত কয়েক মাসে একাধিক সমস্যার মোকাবিলায় ও ক্লান্ত। আমি সবসময় চাইব, মেসি বার্সেলোনাতেই খেলুক। তবে সত্যি যদি ও দল ছাড়ার ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নিয়ে থাকে, তাহলে ম্যান সিটির হয়ে ওকে খেলতে দেখা যেতেই পারে। কাতালন ক্লাবটির সঙ্গে চুক্তির মেয়াদ শেষ হওয়ার সময় মেসির বয়স হবে ৩৪। তবে এর ফলে অন্য কোনো দলে ওর মানিয়ে নিতে সমস্যা হবে না। পেপ গুয়ার্দিওলার সঙ্গে ওর সম্পর্ক খুব ভালো। তাই ফের ওদের একসঙ্গে দেখা যেতেই পারে।’

২০০০ সালে লা মাসিয়া অ্যাকাডেমিতে আগমন মেসির। তারপর কেটে গিয়েছে দীর্ঘ কুড়ি বছর। যে পর্বে মেসি এবং বার্সেলোনার সাফল্যের খতিয়ান ঠাঁই করে নিয়েছে ইতিহাসের পাতায়। তবে ২০১৭ সালে নেইমার বার্সেলোনার ছাড়ার পরই টিম ম্যানেজমেন্টের সঙ্গে মনোমালিন্য দেখা দিতে শুরু করে আর্জেন্টাইন মহাতারকার। এরপর গত বছর সাবেক কোচ আর্নেস্তো ভালভার্দে ছাঁটাইয়ের পর যেভাবে প্রকাশ্যে দলের স্পোর্টিং ডিরেক্টর এরিক আবিদালের সঙ্গে তর্কে জড়িয়ে পরেছিলেন মেসি, তাতে ঝামেলা আরও বাড়ে। সভাপতি জোসেফ বার্তোমেউয়ের মধ্যস্থতায় পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়। চুক্তির মেয়াদ বাড়ানোর জন্য আলোচনা হয় দু’পক্ষের। তবে বর্তমানে কোচ সেতিয়েনের সঙ্গে সম্পর্ক অবনতি হওয়ায় ফের সমস্যা বাড়ে।

বার্সা ছেড়ে মেসির ম্যান সিটিতে যোগ দেয়ার ব্যাপারে রিভাল্ডো আশাপ্রকাশ করলেও তা নিয়ে যথেষ্ট সংশয় রয়েছে। কারণ, আর্থিক দুনীর্তির দায়ে প্রিমিয়ার লিগ ক্লাবটিকে দু’বছর নির্বাসিত করেছে উয়েফা। সেই শাস্তির বিরুদ্ধে সিটি আবেদন করেছে। যার রায় মিলবে চলতি মাসেই। রিভাল্ডো তাই মেসির গন্তব্য হিসেবে জুভেন্তাসের নাম ভাসিয়ে রেখেছেন। বর্তমানে ইতালিয়ান ক্লাবটির হয়ে ধারাবাহিকভাবে খেলে চলেছেন ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো। আগামী দিনে জুভেন্তাস জার্সিতে মেসি-রোনালদোকে একসঙ্গে খেলতে দেখা গেলেও অবাক হওয়ার কিছু নেই বলেই বিশ্বকাপজয়ী মিডিওটির ধারণা।

তিনি বলেন, ‘মেসির বার্সা ছাড়ার খবর প্রকাশ্যে আসতেই একাধিক এজেন্ট ওকে রোনালদোর পাশে দেখতে চাইছে। তা সত্যি হলে চমকে উঠবে ফুটবল দুনিয়া।’

তবে মেসিকে কেনার জন্য প্রয়োজনীয় অর্থ কি রয়েছে জুভেন্তাসের ভাণ্ডারে? তাছাড়া এক আকাশে দু’টি সূর্য থাকতে পারে না। এটা ভালোভাবেই জানেন মেসি ও রোনালদো। তবে জল্পনা চলছেই। উত্তর লুকিয়ে সময়ের গর্ভে।

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

আমাদের সাথে কানেক্টেড থাকুন

আমাদের মোবাইল এপ্পসটি ডাউনলোড করুন