প্রচ্ছদ

আব্দুল মুহিতের সাফল্য গাঁথা কর্মজীবন

০৫ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০২:১৩

ইকবাল ফেরদৌস

বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত মোঃ আব্দুল মুহিত ২০১৬ সালে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ইমিগ্র্যান্ট হিসেবে আসেন । গ্লোবাল ডেট্রোয়েট নামক অলাভজনক সংস্থায় কর্মজীবন শুরু করে অতি অল্প সময়ে তিনি সফলতার দেখা পান। তিনি বর্তমানে ব্যবসায়ীদের উন্নয়নের লক্ষ্যে ডেট্রয়েট সিটির​ অধীনস্থ কাউন্সিল ডিস্ট্রিক্ট-৩ এ বিজনেস লিয়াইজন হিসেবে কর্মরত আছেন।

তিনি সম্প্রতি বাংলা সংবাদের সাথে এক সাক্ষাৎকারে তার কর্মজীবনের শুরু , সফলতা ও উন্নয়ন পরিকল্পনা সহ নানা বিষ​য়​ নিয়ে কথা বলেছেন। সাক্ষাৎকারটি গ্রহণ করেছে বাংলা সংবাদের সম্পাদক ও প্রকাশক ইকবাল ফেরদৌস। আপনার সম্পর্কে কিছু বলেন? আমেরিকা আগমনের পর আপনার কর্মজীবন কিভাবে শুরু হয়? উত্তরঃ আমি ইংল্যান্ড থেকে বিবাহ সুত্রে আমেরিকায় ইমিগ্রেন্ট হিসেবে আসি ২০১৬ সালের জানুয়ারিতে । ইংল্যান্ডে আমি পড়াশোনা করার জন্য গিয়েছিলাম ২০১১ সালে । সেখানে স্ট্রেটিজিক ম্যানেজম্যান্ট​ বিষয়ে ডিপ্লোমা অর্জন করি। সেখানে থাকাকালীন আমি স্থানীয় পোস্ট অফিসে কাউন্টার ক্লার্ক হিসেবে পার্ট টাইম কাজ করেছি। তার পূর্বে আমি বাংলাদেশে ইংরেজি সাহিত্য ও ভাষা বিষয়ে ব্যাচেলর ডিগ্রি অর্জন করি এবং সে সময় আমি স্পোকেন ইংলিশ এবং বেসিক কম্পিউটার শিখাতাম দুটি প্রতিষ্ঠানে। তার কিছুদিন পর ইংল্যান্ডে চলে যাই।

আমেরিকায় আসার পর আমি একটা ব্যাপার লক্ষ্য করলাম মানুষের কাছে নানান বিষয়ে সঠিক তথ্য পৌছায় না। নবাগত অভিবাসীদের এখানে নানান সমস্যার মুখোমুখি হতে হয়। তার অন্যতম কারন হলো, আমাদের ভাষাগত এবং সাংস্কৃতিক পার্থক্যে। আমি সবসমই মানুষের সাথে মিশতে এবং নানান বিষয়ে আলাপ করতে পছন্দ করি। আমেরিকায় আসার দুই মাসের মাথায় একদিন এভাবেই একজনের সাথে পরিচয় হয়, কথা বার্তার এক সময় উনি আমাকে আমার কাজের ব্যপারে জিজ্ঞেস করলে আমি বলি আমি কমিউনিটি ভিত্তিক কোন কাজ করতে চাই, কারন আমার উদ্দেশ্য ছিল কমিউনিটির মানুষের ভাল হয় সে জন্য কাজ করা। আমি ইতোমধ্যে জানতে পেরেছিলাম ডেট্রোয়েট এলাকায় অনেক নন-প্রফিট সংস্থা কাজ করে যেহেতু এই অঞ্চলে অনেক স্বল্প আয় ও ইমিগ্রেন্ট সম্প্রদায়ের বসবাস এবং তাদের বিভিন্ন রিসোর্স সম্পর্কে ধারণা দিতে তারা কাজ করে।

কিছুদিনের মধ্যেই আমি গ্লোবাল ডেট্রোয়েট নামক অলাভজনক সংস্থায় চাকরি পেয়ে যাই যারা বাংলাটাউনে তাদের নতুন প্রকল্পের জন্য একজন বাংলাভাষী প্রার্থীর খোজ করছিল। এভাবে সিটি অফ ডেট্রোয়েট আমার কর্মজীবন শুরু করেছি।

বাংলা সংবাদঃ ২০১৬ সালে আমেরিকাতে আসার পর এত অল্প সময়ে আপনার সফলতার কারণ শুরু থেকে যদি একটু বলতেন । উত্তরঃ আমি জানিনা সফলতা ঠিক কতটুকু। আমি ২০১৬ সালে আমেরিকাতে আসার পর দেখেছি অনেকেই বিভিন্ন কাজ করছেন। আমি চেয়েছি এমন একটা কাজ করতে যেখানে আমি কমিউনিটির জন্য কিছু অবদান রাখতে পারব। বাংলাদেশে ইংরেজি সাহিত্যের ছাত্র হওয়ার কারণে এবং কিছুদিন ইংল্যান্ডে থাকার কারণে ইংরেজি ভাষার উপর আমার যে দখল তৈরি হয়েছিল সেটা আমাকে এক্ষেত্রে অনেক সাহায্য করেছে। তাই আমার এখানে এসে ভাষার জন্য কখনও বেগ পেতে হয়নি।

এছাড়াও, আমার উদ্দেশ্য ছিল এই ধরনের কাজ করার এবং আমি নিঃসংকোচে বিভিন্ন ক্ষেত্রের মানুষের সাথে আমার ক্যারিয়ার নিয়ে কথা বলেছি, এক্ষেত্রে আমি অনেকের নিকট হতে সাহায্য পেয়েছি। একটা ব্যপার আমি মনে করি, কৌতুহলী মন, অদম্য চেষ্টা, ও সঠিক দক্ষতা থাকলে ক্যারিয়ার গড়া সম্ভব। ডেট্রোয়েট তথা আমেরিকায় নানা ভাষা, বর্ণ, জাতি, গোত্রের মানুষের বসবাস। আমরা চলাচলের পথে অনেক কিছু শিখি এবং ভাল বিষয়গুলো আমাদের কাজের ক্ষেত্রে অনুসরণ করতে পারি।

বাংলা সংবাদঃ সিটি অফ ডেট্রয়েটের ৭ টা কাউন্সিল ডিস্ট্রিক্ট আছে। এখানে আপনার জব রোল সম্পর্কে একটু জানতে চাচ্ছি? উত্তরঃ জি, ডেট্রোয়েট শহরটি ৭ টি কাউন্সিল ডিস্ট্রিক্ট এ বিভক্ত।

প্রতিটি ডিস্ট্রিক্ট এ ডিপার্টমেন্ট অফ নেইবারহুডসের অধীনে একজন ডিস্ট্রিক্ট ম্যনেজার, একজন ডেপুটি ডিস্ট্রিক্ট ম্যনেজার আছেন যারা মেয়রের সরাসরি তত্ত্বাবধানে ডেট্রোয়েটের নাগরিকদের সেবা দান করেন এবং ২০১৮ সালে মেয়র ডিস্ট্রিক্ট বিডিস্ট্রিক্ট বিজনেস লিয়াইজন নামে একটি পদ যুক্ত করেন যাদের কাজ হলো ব্যবসায়ীদের উন্নয়নের লক্ষে কাজ করা। আমি কাউন্সিল ডিস্ট্রিক্ট ৩ তে বিজনেস লিয়াইজন হিসেবে কাজ করি। আমাদের কাজ হল ব্যবসায়ের মালিকদের ব্যবসার অনুমতিপত্র নেওয়া, লাইসেন্সিং নেওয়া, ব্যবসার পরিকল্পনা পর্যালোচনার কাজ, এবং ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের বিভিন্ন পরিদর্শন ইত্যাদি কাজে সিটির সংস্থাগুলোর প্রক্রিয়ায় সহজতর করতে সহায়তা করা, ব্যবসায়ের মূলধন, ব্যবসার জন্য প্রতিভাবান কর্মচারীর ব্যাপার,সময়ের সাথে সাথে তথ্য উপাত্ত সংগ্রহ করা যা ব্যবসার জন্য যে চ্যালেঞ্জসমূহ রয়েছে এমন প্রবণতাগুলো, প্রক্রিয়া, নীতিসমূহের উন্নতি সাধন করা যা ছোট ব্যবসায়ী সম্প্রদায়ের উপকারে আসতে পারে।

বাংলা সংবাদঃ একটি সফল ব্যবসা শুরু করার মূল প্রক্রিয়া গুলো কি কি ? প্রক্রিয়া সম্পন্ন করতে আপনারা কিভাবে সাহায্য করে থাকেন? উত্তরঃ একটি সফল ব্যবসা শুরুর আগে ও পরে বেশ কিছু প্রক্রিয়া জড়িত থাকে। প্রথমেই আপনার ব্যবসার যে ধারনা আছে তার একটি লিখিত পরিকল্পনা থাকতে হবে।

যে ব্যবসা করতে চাচ্ছেন তার ক্ষেত্র, মার্কেট, কাস্টমার, প্রতিযোগিতার বিষয়ে পর্যালোচনা করতে হবে। ব্যবসার মূলধন অর্জনের সামর্থ ও বিনিয়োগের অর্থের সঠিক হিসেব থাকতে হবে। অতঃপর, ব্যবসা শুরু করার আগে সিটি অফ ডেট্রোয়েটের বিজনেস লাইসেন্সিং বিভাগ থেকে, বিজনেস লাইসেন্স, সার্টিফিকেট অফ অকুপেন্সি, সার্টিফিকেট অফ কমপ্লায়েন্স ইত্যাদি সংগ্রহ করতে হবে। ব্যবসার ক্ষেত্র যদি স্টেট ভিত্তিক তবে স্টেট থেকেও লাইসেন্স নিতে হবে। ব্যবসার জন্য ডেট্রোয়েট ইকোনমিক গ্রউথ করপোরেশন (ডি ই জি সি) এর পক্ষ থেকে মোটর সিটি ম্যাচ নামে একটি ম্যাচিং অনুদান প্রতিযোগিতার মাধ্যমে অর্থ পেতে পারেন। এছাড়াও, বিভিন্ন মানব-হিতৈষী প্রতিষ্ঠানসমূহ আপনার ক্রেডিট যাচাই না করেও অর্থ লোন প্রদান করে থাকে যদি আপনার ব্যবসা পরিচালনার ক্ষেত্রে ভাল চরিত্রের পরিচয় বহন করে এবং আমরা

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

আমাদের সাথে কানেক্টেড থাকুন

আমাদের মোবাইল এপ্পসটি ডাউনলোড করুন